মৃত্যু এমনই বাস্তবতা যা সকলকেই এক সময়ে মেনে নিতে হয়। হয়তো আজ নয়তো কাল, একদিন সবাইকে এ স্বাধের পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হয় না ফেরার দেশে। যেখানে থেকে কেউ চাইলেও আর ফিরে আসতে পারে না। তবে কিছু কিছু মৃত্যু সত্যি খুবই কষ্টের যা মনকে মানিয়ে নেওয়া যায় না। জানা গেছে, বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বসবাসরত এক অ্যাম্বুলেন্সচালকের মৃত দেহ নিজের ঘর থেকে উদ্ধার করেছে প্রশাসন। যিনি কি না দীর্ঘ দিন অসুস্থ মানুষকে বয়ে হাসপাতালে নিয়ে এসেছে অথচ তার বেলায় কেউ এগিয়ে আসেনি।
বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের আউলিয়াপুর বৈরমখার দীঘিরপাড় এলাকা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মৃত চালকের নাম জুলহাস হাওলাদার ওরফে মো. দুলাল হাওলাদার (৫৫)। তিনি আউলিয়াপুর গ্রামের মো. রোস্তম হাওলাদারের ছেলে। দুলাল পটুয়াখালী সদর মা ও শিশু হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সচালক ছিলেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মো. দুলাল হাওলাদারের স্ত্রী ও সন্তানরা চাকরির কারণে ঢাকায় বসবাস করেন। তিনি একাই উপজেলার বৈরমখার দীঘিরপাড়সংলগ্ন তার নিজ বাড়িতে থাকতেন।

দীর্ঘদিন ধরে দুলাল বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, মঙ্গলবার রাতে কোনো একসময় তার মৃত্যু হয়। বুধবার সারাদিন তার কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে এলাকার লোকজন ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করেন। কোনো সাড়া না পেয়ে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেন।


পরবর্তীতে খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে বাসার দরজা খুলে দুলাল হাওলাদারের মরদেহ উদ্ধার করেন পুলিশ। তবে এ বিষয়ে বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আবুল কালাম সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, তার এ মৃত্যু স্বাভাবিক মৃত্যু বলেই ধারনা করা হচ্ছে। কেন না তিনি দীর্ঘদিন বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। হয়তো এ কারনেই তার মৃত্যু হয়েছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display