কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন কুমিল্লা (উ.) জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্তা সিআইপি সেলিমা আহমাদ মেরী।
তাকে লড়াই করতে হবে বিএনপির হেভিওয়েট ভিআইপি প্রার্থী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন কুমিল্লা-১ ও ২ আসন থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন। সাধারণ ভোটারদের ধারণা নির্বাচনে ভিআইপি-সিআইপিতে লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। বিএনপির দুর্গ হিসেবে পরিচিত এ সংসদীয় আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৯০ হাজার ৬ জন।
এ আসনের বিএনপির ভিআইপি প্রার্থী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন প্রার্থী হওয়ায় উজ্জীবিত বিএনপি নেতাকর্মীরা। তবে এলাকার প্রার্থী না থাকায় নির্বাচনে জনগণের মধ্যে তেমন আগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এ সুযোগটা কাজে লাগাতে চাইছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী সেলিমা আহমাদ মেরী।
এদিকে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে (স্বতন্ত্র) মনোনয়ন জমা দিলেও তার মনোনয়ন বাতিল হওয়ায় তার অনুসারী নেতাকর্মীরা দলীয় প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামতে শুরু করেছেন। দলের নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা, ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে চমক সৃষ্টি করবেন।
আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিমা আহমাদ মেরী শিল্প প্রতিষ্ঠান নিটল-নিলয় গ্র"পের ভাইস চেয়ারপারসন এবং বাংলাদেশ ওমেন্স চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমেদের স্ত্রী। তিনি হোমনা উপজেলার আসাদপুর ইউনিয়নের পাতালিয়াকান্দি গ্রামের মেয়ে।