\’বাবা ১০টা টাকা দাও, আর একটা ছাতা দাও, আমি প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছি।\’—মেয়ের এমন আবদার শুনে গাড়িচালক বাবা পকেট থেকে ১০ টাকা এাবং ঘরের খাটের নিচ থেকে ছাতাটা খুঁজে বের করে দেন। বাইরে টিপটিপ বৃষ্টি হচ্ছিল। এর মধ্যেই আনুমানিক ৪টার দিকে বাসা থেকে বের হয় ১০ বছরের শিশু সানজিদা। আর ঠিক দুই ঘণ্টা পরেই খবর আসে সানজিদা লাশ হয়ে ঝুলে আছে শিক্ষিকার বেড রুমে।
গত ২১ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানা এলাকার একটি বাসা থেকে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী সানজিদার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ওই এলাকার ফুলকলি হাইস্কুলের শিক্ষিকা নুসরাত জাহান মনির বাসায় বিকাল ৪টায় প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল। সেই বাসার বেড রুম থেকেই তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। তবে ঘটনার সময় ওই শিক্ষিকা এবং তার স্বামী বাসাতেই ছিলেন।
সানজিদার পরিবারের দাবি, তাকে হত্যা করে লাশটি ফ্যানের রডের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। আর ওই শিক্ষিকার পরিবারের দাবি, সানজিদা ঘরের ভেতরে ঝুলে থাকা দড়িতে খেলতে গিয়ে মারা গেছে।





কী ঘটেছিল সেদিন
ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে সানজিদার বাবা গাড়িচালক মো. শাজাহান মিয়া জানান, তার দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে সানজিদাই ছিল বড়। সে স্থানীয় একটি মাদরাসায় চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত। ছোট ছেলে হান্নান বাবু প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। অভাবের সংসার হলেও দুই সন্তানকে ভালোভাবে পড়াশোনা করাতে চেয়েছিলেন তিনি। সে কারণে ফুলকলি হাইস্কুলের শিক্ষিকা নুসরাত জাহান মনির কাছে প্রাইভেট পড়তে দিয়েছিলেন দুজনকেই। দুই ভাই-বোন একসঙ্গেই ওই শিক্ষিকার কাছে প্রাইভেট পড়তে যেত। কিন্তু সেদিন আকাশে বৃষ্টি থাকার কারণে ছেলে হান্নান পড়তে যেতে চাইছিল না। এ জন্য সানজিদা ছোট ভাইকে ছাড়া একাই প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল। বাবার কাছে থেকে ১০ টাকা ও একটি ছাতা নিয়ে একাই পড়তে যায় সে। সে সময় তার সঙ্গে প্রতিবেশী আরও ৩টি শিশু পড়তে গিয়েছিল।
মো. শাজাহান মিয়া আরও জানান, সাধারণত সাড়ে ৫টার দিকে তাদের পড়া শেষ হয়। অনেক সময় ৬টাও বেজে যায়। কিন্তু ওই দিন সন্ধ্যায় পাশের বাসার এক মহিলা তার নাতনিকে আনতে গিয়েছিলেন ওই শিক্ষিকার বাসায়। তিনি এসে জানান যে সানজিদাকে অনেক ডাকাডাকি করার পরেও সে নামেনি, তাই তিনি শুধু তার নাতনিকে নিয়েই চলে আসেন। এরপর সানজিদার মাকে ওই শিক্ষিকার কাছে ফোন দিতে বলেন শাজাহান।
সানজিদার মা ওই শিক্ষিকাকে ফোন করে বলেন, \’আপা আমার মেয়ে কই, এখনো যে বাসায় আসল না?\’ এ কথা শুনেই অপর প্রান্ত থেকে ওই শিক্ষিকা কান্না শুরু করেন। তখন মেয়ের কিছু একটা হয়েছে বুঝতে পেরে ওই শিক্ষিকার বাসার দিকে দৌড় দেন স্বামী-স্ত্রী। বাসার আশপাশে গিয়ে শুনতে পান তাদের মেয়েকে নাকি মেরে ফেলা হয়েছে। এরপর পঞ্চম তলার বাসায় উঠে মেয়ে মারা যাওয়ার খবর শুনেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন সানজিদার মা। আর শাজাহান লাশ দেখতে ভেতরে যেতে চাইলে তাকে বাধা দেওয়া হয়। এরপর পুলিশ এসে সানজিদার লাশ দড়ি কেটে নামিয়ে তাদের দেখতে ডাকে। তারপর লাশ ময়না তদন্তের জন্য মিডফোর্ট হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে ময়না তদন্ত শেষে তাদের গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে আজ (সোমবার) ২৩ এপ্রিল, সকাল ১০টার দিকে দাফন করা হয় সানজিদার মরদেহ। খবর প্রিয়.কমের।
সানজিদার মৃত্যু নিয়ে রহস্য
সানজিদার এভাবে মারা যাওয়ার ঘটনা নিয়ে নানা রকম রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। সানজিদা সেদিন যখন ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে মারা যায় তখন বাসায় আরও ছাত্রছাত্রী ছিল। ওই শিক্ষিকা, তার স্বামী মোরশেদ আলম এবং তাদের আরও এক সন্তানও ছিল বাসায়। তাই প্রশ্ন উঠেছে, সানজিদা তাদের বেড রুমে দড়িতে ঝুলে মারা গেল কিন্তু কেউই সেটা টের পেল না কেন?
এ বিষয়ে সানজিদার মামা মো. আলমগীর হোসেন জানান, ঘটনার পর থানায় শুধু একটি একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু সানজিদার মৃত্যু নিয়ে অনেক রহস্য রয়েছে। তার দাবি, এটা একটি হত্যার ঘটনা। এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচার চান তিনি ।
\’ধর্ষণ পরে হত্যা\’ বলে দাবি সানজিদার পরিবারের
সানজিদাকে ধর্ষণের পরে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে বলে দাবি করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। সানজিদার বাবা শাজাহান এ বিষয়ে বলেন, \’মেয়ের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই সবকিছু জানা যাবে। তবে মেয়ের মা নিজেই সানজিদার শরীরের অনেক জায়গা চেক করেছেন। এরপর আমাকেও দেখিয়েছেন, এই জন্য আমরা ধারণা করছি যে আমার মেয়ের সাথে খারাপ কিছু হয়েছে।\’
ঝুলন্ত লাশের ছবিতে যা দেখা গেল
সানজিদার ঝুলন্ত লাশের ছবিতে দেখা গেছে সে বেড রুমের মধ্যে খাটের ঠিক পাশেই ঝুলে আছে। আর খাটের ওপরে কিছু বই-পুস্তক ছড়ানো-ছিটানো। ঘরের মধ্যে লাশের পেছনের দিকে রয়েছে একটি ফ্রিজ, টিভি। সানজিদার লাশ বাম ঘাড় কাত করে ও চোখ নিচের দিকে করে তাকিয়ে ছিল। আর হাত দুটি ছিল সামনের দিক থেকে ঝোলানো। আর দড়িটি ওপর থেকে নিচের দিকে ঝোলানো।
সানজিদার লাশের ছবি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা
১০ বছরের শিশু সানজিদার ঝুলন্ত লাশের একটি ছবি দিয়ে হত্যার বিচার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বেশ কিছু পোস্ট ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকে এই ঘটনার সুস্থ তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।
পুলিশের ভাষ্য
ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের সিনিয়র এসি (ডেমরা বিভাগ) ইফতেখারুল ইসলাম জানান, ঘটনার সময় ওই শিক্ষিকা বাসার অন্য আরেক রুমে তার বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছিলেন। তখন তার স্বামীও বাসায় ছিলেন, কিন্তু তিনি ঘুমাচ্ছিলেন। ঘটনার পর সানজিদার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছিল। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলেই জানা যাবে সানজিদার মৃত্যুর কারণ। এই ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে। তবে হত্যার বা অন্য কোনো ধরনের প্রমাণ পেলে অবশ্যই দোষীদের গ্রেফতার করা হবে বলে জানান তিনি।
ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটে থাকতে পারে কি না জানতে চাইলে ইফতেখারুল ইসলাম জানান, ময়না তদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত এ বিষয়ে কিছুই বলা যাবে না।

আরো পড়ুন

'বন্ধু সেজে ছুরি মারা'র মতো কাজ করলো চীন, অভিযোগ মিয়ানমারের

02 July, 2020 | Hits:492

দক্ষিণ এশিয়ার দুটি দেশ চীন এবং মিয়ানমার যাদের বন্ধুত্ব অনেক দেশের জন্য ঈ’র্ষারও বটে। কিন্তু সেই বন্ধু দেশ মিয়ানমারই এবার...

ভারতীয় ভূখণ্ডে মোদির সফর, তবুও তোপ দেখালো বেইজিং

03 July, 2020 | Hits:418

চীন এবং ভারতের মধ্যকার সীমান্ত উত্তে’জনার মাঝেই অনেকটা হঠাৎ করেই লাদাখ স’ফরে গেলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। স...

সামান্যতম ভুলে টিকটক তারকার অন্ত'রঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও রাতারাতি ভা'ইরাল

02 July, 2020 | Hits:374

বর্তমান সময়ে তথ্যপ্রযুক্তির কল্যানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো হয়ে উঠেছে বেশ জনপ্রিয়। স্মার্ট ফোন এখন ভিডিও ক্যামেরা থেক...

অধিকাংশ মানুষেরই করোনা ভ্যাকসিনের প্রয়োজন পড়বে না: অক্সফোর্ড গবেষক

02 July, 2020 | Hits:324

করোনা নামক একটি অদৃশ্য ভাইরাস সৃষ্টি করে চলেছে এক প্রলয় যার কারনে মানুষ আজ অনেকটাই দিশেহারা, বিপ’র্যস্ত হয়ে পড়েছে পুরো প...

সালমানের সাথে তিন মাস বাগানবাড়িতে কাটালেন জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ

02 July, 2020 | Hits:310

সালমান খানকে এখনও ভারতের সর্বাধিক আকাঙ্ক্ষিত ব্যাচেলর বলা হয়। অনেক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে যে তিনি ক্যাটরিনা কাইফ, ঐ...

করোনার কার্যকর ভ্যাকসিন পেতে কত সময় লাগতে পারে জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

03 July, 2020 | Hits:252

কোভিড-১৯ মহামারী স্থবির করে দিয়েছে সারা বিশ্বকে যার কারনে জনজীবন আজ হয়ে পড়েছে বিপ’র্যস্ত। এই মা’রন রোগ চিকিৎসক, বিজ্ঞানী...

ভারতের ছোট্ট একটি প্রতিশোধে চীনের ক্ষতির পরিমান ৬ বিলিয়ন ডলার

03 July, 2020 | Hits:250

সীমান্তে ঘটনার জেরে ভারতের নিজস্ব ভূখন্ডে বয়কট করলো চীনা পন্য এবং সে সাথে বন্ধ করলো টিকটকসহ অন্তত ৫৯টি চীনা অ্যাপ। এরপর ...

চীনকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টায় শেষপর্যন্ত হংকং বিষয়ে মুখ খুলল নয়াদিল্লি

02 July, 2020 | Hits:237

ভারত এবং চীনের মধ্যকার পূর্বের যে বিরাজমান সম্পর্ক তা এখন ভারসাম্যহীনতার মুখোমুখি। দেশ দুটি তাদের সীমান্ত বি’রোধ সমাধান ...

সীমান্ত উ'ত্তেজনা উপেক্ষা করেই যে কারনে লাদাখ পৌঁছলেন মোদি

03 July, 2020 | Hits:226

ভারত চীন সীমান্তের ঘটনায় দেশ দুটির মধ্যে যেন বি’রোধ চ’রম পর্যায়ে পৌঁছেছে। কয়েক দফায় দীর্ঘ সময় ধরে দুই দেশের মধ্যে বৈঠক চ...