\’বাবা ১০টা টাকা দাও, আর একটা ছাতা দাও, আমি প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছি।\’—মেয়ের এমন আবদার শুনে গাড়িচালক বাবা পকেট থেকে ১০ টাকা এাবং ঘরের খাটের নিচ থেকে ছাতাটা খুঁজে বের করে দেন। বাইরে টিপটিপ বৃষ্টি হচ্ছিল। এর মধ্যেই আনুমানিক ৪টার দিকে বাসা থেকে বের হয় ১০ বছরের শিশু সানজিদা। আর ঠিক দুই ঘণ্টা পরেই খবর আসে সানজিদা লাশ হয়ে ঝুলে আছে শিক্ষিকার বেড রুমে।
গত ২১ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানা এলাকার একটি বাসা থেকে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী সানজিদার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ওই এলাকার ফুলকলি হাইস্কুলের শিক্ষিকা নুসরাত জাহান মনির বাসায় বিকাল ৪টায় প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল। সেই বাসার বেড রুম থেকেই তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। তবে ঘটনার সময় ওই শিক্ষিকা এবং তার স্বামী বাসাতেই ছিলেন।
সানজিদার পরিবারের দাবি, তাকে হত্যা করে লাশটি ফ্যানের রডের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। আর ওই শিক্ষিকার পরিবারের দাবি, সানজিদা ঘরের ভেতরে ঝুলে থাকা দড়িতে খেলতে গিয়ে মারা গেছে।





কী ঘটেছিল সেদিন
ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে সানজিদার বাবা গাড়িচালক মো. শাজাহান মিয়া জানান, তার দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে সানজিদাই ছিল বড়। সে স্থানীয় একটি মাদরাসায় চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত। ছোট ছেলে হান্নান বাবু প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। অভাবের সংসার হলেও দুই সন্তানকে ভালোভাবে পড়াশোনা করাতে চেয়েছিলেন তিনি। সে কারণে ফুলকলি হাইস্কুলের শিক্ষিকা নুসরাত জাহান মনির কাছে প্রাইভেট পড়তে দিয়েছিলেন দুজনকেই। দুই ভাই-বোন একসঙ্গেই ওই শিক্ষিকার কাছে প্রাইভেট পড়তে যেত। কিন্তু সেদিন আকাশে বৃষ্টি থাকার কারণে ছেলে হান্নান পড়তে যেতে চাইছিল না। এ জন্য সানজিদা ছোট ভাইকে ছাড়া একাই প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল। বাবার কাছে থেকে ১০ টাকা ও একটি ছাতা নিয়ে একাই পড়তে যায় সে। সে সময় তার সঙ্গে প্রতিবেশী আরও ৩টি শিশু পড়তে গিয়েছিল।
মো. শাজাহান মিয়া আরও জানান, সাধারণত সাড়ে ৫টার দিকে তাদের পড়া শেষ হয়। অনেক সময় ৬টাও বেজে যায়। কিন্তু ওই দিন সন্ধ্যায় পাশের বাসার এক মহিলা তার নাতনিকে আনতে গিয়েছিলেন ওই শিক্ষিকার বাসায়। তিনি এসে জানান যে সানজিদাকে অনেক ডাকাডাকি করার পরেও সে নামেনি, তাই তিনি শুধু তার নাতনিকে নিয়েই চলে আসেন। এরপর সানজিদার মাকে ওই শিক্ষিকার কাছে ফোন দিতে বলেন শাজাহান।
সানজিদার মা ওই শিক্ষিকাকে ফোন করে বলেন, \’আপা আমার মেয়ে কই, এখনো যে বাসায় আসল না?\’ এ কথা শুনেই অপর প্রান্ত থেকে ওই শিক্ষিকা কান্না শুরু করেন। তখন মেয়ের কিছু একটা হয়েছে বুঝতে পেরে ওই শিক্ষিকার বাসার দিকে দৌড় দেন স্বামী-স্ত্রী। বাসার আশপাশে গিয়ে শুনতে পান তাদের মেয়েকে নাকি মেরে ফেলা হয়েছে। এরপর পঞ্চম তলার বাসায় উঠে মেয়ে মারা যাওয়ার খবর শুনেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন সানজিদার মা। আর শাজাহান লাশ দেখতে ভেতরে যেতে চাইলে তাকে বাধা দেওয়া হয়। এরপর পুলিশ এসে সানজিদার লাশ দড়ি কেটে নামিয়ে তাদের দেখতে ডাকে। তারপর লাশ ময়না তদন্তের জন্য মিডফোর্ট হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে ময়না তদন্ত শেষে তাদের গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে আজ (সোমবার) ২৩ এপ্রিল, সকাল ১০টার দিকে দাফন করা হয় সানজিদার মরদেহ। খবর প্রিয়.কমের।
সানজিদার মৃত্যু নিয়ে রহস্য
সানজিদার এভাবে মারা যাওয়ার ঘটনা নিয়ে নানা রকম রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। সানজিদা সেদিন যখন ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে মারা যায় তখন বাসায় আরও ছাত্রছাত্রী ছিল। ওই শিক্ষিকা, তার স্বামী মোরশেদ আলম এবং তাদের আরও এক সন্তানও ছিল বাসায়। তাই প্রশ্ন উঠেছে, সানজিদা তাদের বেড রুমে দড়িতে ঝুলে মারা গেল কিন্তু কেউই সেটা টের পেল না কেন?
এ বিষয়ে সানজিদার মামা মো. আলমগীর হোসেন জানান, ঘটনার পর থানায় শুধু একটি একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু সানজিদার মৃত্যু নিয়ে অনেক রহস্য রয়েছে। তার দাবি, এটা একটি হত্যার ঘটনা। এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচার চান তিনি ।
\’ধর্ষণ পরে হত্যা\’ বলে দাবি সানজিদার পরিবারের
সানজিদাকে ধর্ষণের পরে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে বলে দাবি করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। সানজিদার বাবা শাজাহান এ বিষয়ে বলেন, \’মেয়ের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই সবকিছু জানা যাবে। তবে মেয়ের মা নিজেই সানজিদার শরীরের অনেক জায়গা চেক করেছেন। এরপর আমাকেও দেখিয়েছেন, এই জন্য আমরা ধারণা করছি যে আমার মেয়ের সাথে খারাপ কিছু হয়েছে।\’
ঝুলন্ত লাশের ছবিতে যা দেখা গেল
সানজিদার ঝুলন্ত লাশের ছবিতে দেখা গেছে সে বেড রুমের মধ্যে খাটের ঠিক পাশেই ঝুলে আছে। আর খাটের ওপরে কিছু বই-পুস্তক ছড়ানো-ছিটানো। ঘরের মধ্যে লাশের পেছনের দিকে রয়েছে একটি ফ্রিজ, টিভি। সানজিদার লাশ বাম ঘাড় কাত করে ও চোখ নিচের দিকে করে তাকিয়ে ছিল। আর হাত দুটি ছিল সামনের দিক থেকে ঝোলানো। আর দড়িটি ওপর থেকে নিচের দিকে ঝোলানো।
সানজিদার লাশের ছবি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা
১০ বছরের শিশু সানজিদার ঝুলন্ত লাশের একটি ছবি দিয়ে হত্যার বিচার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বেশ কিছু পোস্ট ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকে এই ঘটনার সুস্থ তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।
পুলিশের ভাষ্য
ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের সিনিয়র এসি (ডেমরা বিভাগ) ইফতেখারুল ইসলাম জানান, ঘটনার সময় ওই শিক্ষিকা বাসার অন্য আরেক রুমে তার বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছিলেন। তখন তার স্বামীও বাসায় ছিলেন, কিন্তু তিনি ঘুমাচ্ছিলেন। ঘটনার পর সানজিদার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছিল। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলেই জানা যাবে সানজিদার মৃত্যুর কারণ। এই ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে। তবে হত্যার বা অন্য কোনো ধরনের প্রমাণ পেলে অবশ্যই দোষীদের গ্রেফতার করা হবে বলে জানান তিনি।
ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটে থাকতে পারে কি না জানতে চাইলে ইফতেখারুল ইসলাম জানান, ময়না তদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত এ বিষয়ে কিছুই বলা যাবে না।

আরো পড়ুন

আশিক টাওয়ারে রাতের আসর ভিন্ন মাত্রায় পৌঁছে দিয়েছিল ইরফান সেলিমকে

28 October, 2020 | Hits:531

রাত বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে পুরাতন ঢাকার রাস্তা এবং সড়কগুলো শুরু হয় ফাঁকা হতে। এ দিকে কমতে শুরু করে ভিড়। কোলাহল কমে গিয়ে অ...

স্ত্রীর সাথে অভিমান করেই এমনটি করেছিলেন ইরফান সেলিম

28 October, 2020 | Hits:442

রাজধানীর চকবাজার এলাকার সাংসদ হাজী সেলিমের রাজপ্রাসাদসম ভবন ’চান সরদার দাদা বাড়ি’ হতে গ্রে’/প্তার হয়েছিলেন হাজী সেলিমের ...

নিলামে উঠছে মোংলা বন্দরে পড়ে থাকা বিপুল সংখ্যক বিলাসবহুল গাড়ি, সুযোগ হচ্ছে কেনার

28 October, 2020 | Hits:350

করোনা পরিস্থিতির কারনে খালাস করে না নেওয়ায় এবার নিলামে উঠতে চলেছে মোংলা বন্দরে পড়ে থাকা ৯২টির মতো রিকন্ডিশন এবং বিলাসবহু...

এবার সৌদিতে নারীদের বিদেশি স্বামীর ক্ষেত্রে শর্ত শিথিল করে হলো নতুন এক আইন

28 October, 2020 | Hits:335

সৌদি আরবের যে সকল নারী অন্য কোনো দেশের কোনো পুরুষকে বিয়ে করেছেন বা স্বামী গ্রহণ করার মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিয়েছেন। পূর্বে...

গ্রে'ফতারের পর কোয়ারেন্টিনে থাকতে হচ্ছে হাজী সেলিমপুত্রকে

27 October, 2020 | Hits:335

নৌবাহি’নীর একজন কর্মকর্তার সাথে আশোভন আচারন এবং মা’রধ’রের ঘটনায় গ্রে’ফতার হয়েছেন সাংসদ হাজী সেলিমের ছেলে এবং ওয়ার্ড কাউন...

এবার ইরফান সেলিম সম্পর্কে ভিন্ন এক তথ্য দিল র‍্যাব

27 October, 2020 | Hits:270

গত রবিবার রাতে ঢাকা-৭ সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে কাউন্সিলর ইরফান সেলিম ও তার সহযোগীরা নেভি অফিসার লেঃ মোঃ ওয়...

৭০ সদস্যে বিশিষ্ট শক্তিশালী আর্মড গ্যাং পরিচালনায়ও ছিল অভিনবত্ব ইরফান সেলিমের

28 October, 2020 | Hits:174

নৌবাহি/’নীর একজন কর্মকর্তাকে লা’/ঞ্চনা এবং মা’/রধরের ঘটনায় গ্রে’/প্তার হয়েছেন সাংসদ হাজী সেলিমের পূত্র কাউন্সিলর ইরফান স...

ঢাবিতে ৪ বছর একসাথে পার করলেও রুম্পার চেহারা কোনোদিন দেখেনি সহপাঠীরা

28 October, 2020 | Hits:171

পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলায় ইচ্ছার বিরুদ্ধে পুরোপুরি জোর করে পছন্দ না হওয়া এক ছেলে সাথে বিয়ে দেবার প্রস্তুতি নেবার সময়ে ...

বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ করতে এবার কাফালা পদ্ধতি বাতিল করতে যাচ্ছে সৌদি সরকার

28 October, 2020 | Hits:137

বিশ্বের প্রায় ১০০ টিরও বেশি দেশের একটি বড় শ্রম বাজার হচ্ছে সৌদি আরব, যেখানে বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক শ্রমিক কাজ করেন বিভি...