কানো তেমন কোনো সমৃদ্ধ রাজ্য নয়, এটি পশ্চিম আফ্রিকার দেশ উত্তর নাইজেরিয়ার একটি রাজ্য। বড় ধরনের এলা’হি কাণ্ড চলছে কানো রাজ্যব্যাপী। সেখানকার প্রেসিডেন্ট পূত্রের বিয়ে বলে কথা। কনে সেই দেশের একজন শীর্ষপর্যায়ের ধর্মীয় নেতার কন্যা। ফলশ্রুতিতে, সমস্ত রাজ্য জুড়ে চলছে উৎসব আর উৎসব।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

এটা সহজেই অনুমান করা যায় যে, দুটি ভিআইপি পরিবারের ছেলে -মেয়ের জন্য একটি বিশাল বিয়ের আয়োজন করা হবে। হলো সেটাই তারপরও, একের পর এক প্রাইভেট প্লেন বিয়ে উপলক্ষে কানো বিমানবন্দরে অবতরণ করছে। দেশের অভিজাত নেতা এবং পশ্চিম আফ্রিকার উচ্চপদস্থ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা এই প্লেনে বিয়ের অতিথি হিসেবে আসছেন।

একটি বিদেশি সংবাদাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, নাইজেরিয়ায় এ বছরের আলোচিত ঘটনা হলো- প্রেসিডেন্টের ছেলে ইউসুফ বুহারি ও জাহরা নাসির বায়েরোর বিয়ে। ইউসুফ ও জাহরার দেখা হয় যুক্তরাজ্যের সারে ইউনিভার্সিটিতে। এমির অব বিচি প্যালেসে এই বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশ নেন কয়েক হাজার মানুষ।

স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার বিয়ের এ অনুষ্ঠান চলে। কনের বাবা নাসির আডো বায়েরো রাজপরিবারের সম্মানীয়। তার ভাইও নাইজেরিয়ার অন্যতম ইসলামিক নেতা।

জানা গেছে, বরের পরিবার কনের পরিবারকে পাঁচ লাখ নাইরা দিয়েছে। নাইজেরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সাধারণত বিয়েতে বর যে পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করেন, এই অর্থের পরিমাণ তার চেয়ে ১০ গুণ বেশি।

যদিও বিয়ের আগেই কনে জাহরা নাসির বায়েরোর একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বি’ত/র্কের সৃষ্টি করে। অনেকেই তার পোশাক নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। আবার অনেকে তার পোশাককে সমর্থনও করেছেন।

বিমানবন্দরের একজন কর্মকর্তা জানান, বিয়ের অনুষ্ঠানে প্রায় অর্ধশত অতিথি ব্যক্তিগত বিমানে আসেন। তবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে বিয়ের অনুষ্ঠানের আতিশয্য খুব বেশি কমানো হয়নি বলেও জানানো হয়েছে েকটি প্রতিবেদনে। বেশির ভাগ অতিথিই মাস্ক পরেছিলেন।

এদিকে বিয়ের অনুষ্ঠানে নিরা’পত্তাব্যবস্থাও ছিল কড়া। পু’/লি’/শ ও সা’/ম’/রিক কর্মকর্তারা প্যালেসটি ঘি’রে রেখেছেন। বিয়ের অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করছেন যোগাযোগমন্ত্রী ইমাম ইসা আলী পানতামি।

বিয়েতে দেশেটির বিভিন্ন অঞ্চলের শীর্ষ পর্যায়ের রাজনীতিবিদ, বিভিন্ন অঞ্চলের যে সকল প্রশাসক রয়েছেন তারা এবং বি’রোধী দলের যে সমস্ত নেতারা রয়েছেন তারা উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে ছিলেন রাষ্ট্রপতি মুহাম্মাদু বুশারির যে পূর্বসূরি গুডলাক জোনাথন রয়েছেন তিনি এবং তার পরিবারের সদস্যরা। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বুশারী তাকে পরা’জিত করেছিলেন।

বিদেশী যে সমস্ত অতিথি যোগদান করেছিলেন তাদের মধ্যে আছেন ফাতুমাতা ওয়াহ ব্যারো যিনি গাম্বিয়ার ফার্স্ট লেডি এবং মুহাম্মাদু ইসোউফু যিনি প্রতিবেশী দেশ নাইজারের সাবেক প্রেসিডেন্ট।
খবর বিবিসি’র।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display