একজন নারী বারবার তার স্বামী এবং সন্তানদের ছেড়ে অন্য পুরুষের সাথে ঘর ছেড়ে পা’লিয়েছেন। কিন্তু এই ধরনের কা’ন্ড করার পরেও যতবার সে ফিরে এসেছে, তার স্বামী তাকে গ্রহণ করেছে। না, এটি কোন চলচ্চিত্রের কোনো কাহিনি নয়, বাস্তব জীবনেই এই ধরনের ঘটনা ভারতের আসামে ঘটেছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

ভারতীয় জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যম ডিএনএ অনুসারে, ৪০ বছর বয়সী একজন নারী তার বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর হতে ২৫ বার অন্য পুরুষের সাথে পা’লিয়ে গেছে। কিন্তু যে সময়ই তিনি আবার ফিরে এসেছেন, তার স্বামী এবং শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তার প্রতি তেমন কোনো ধরনের আসদাচরন ছাড়াই মেন নিয়ে সংসার করতে দিয়েছেন।

জানা গেছে, দশ বছর আগে ওই মহিলা আসামের নওগাঁ জেলার ধিং লাহকর গ্রামের মফিজউদ্দিন নামে এক চালকের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁ’ধেন। তাদের তিনটি সন্তানও রয়েছে। যাইহোক, নারীর মন সংসারে স্থায়ী হয় না। বারবার বাড়ি থেকে পা’লিয়ে যায়।

মফিজউদ্দিন বলেন, ২০১১ সালে বিয়ের পর দশ বছরে আমার স্ত্রী প্রায় ২৫ বার অন্যদের সাথে পা’লিয়ে গিয়েছিল। প্রতিবার, পরিবারে ফিরে আসার পর, সে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে সে আর এমন কাজ করবে না। কিন্তু প্রতিবারই সে তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, কখনও কখনও আমার স্ত্রী দাবি করতেন যে সে তার আত্মীয়দের বাড়িতে গেছে। কখনও আবার বলতো তার অসুস্থ আত্মীয়দের দেখতে গিয়েছিল।

মফিজউদ্দিন জানান, তাদের তিনটি সন্তান রয়েছে। তাদের কথা চিন্তা করে প্রতিবারই তারা তার স্ত্রী ফিরিয়ে এনেছেন।

মফিজ বলেন, গত শনিবার যখন আমি কাজ থেকে বাড়ি ফিরি তখন বাবার কাছ থেকে জানতে পারি আমার তিন মাসের ছেলেকে প্রতিবেশীর বাড়িতে রেখে স্ত্রী পা’লিয়ে গেছে। ছাগলের জন্য কিছু খাবার আনার কথা বলে সে শি’/’শুটিকে রেখে যায়। তিনি আরও বলেন, আমি জানি না সে কখন ফিরে আসবে।

ওই নারীর স্বামী জানান, এবার পা’লানোর আগে তার স্ত্রী বাড়ি থেকে ২২ হাজার রুপি এবং অন্যান্য জিনিসপত্রও নিয়ে গেছে। তবে তার স্ত্রী কার সঙ্গে পা’লিয়ে গিয়েছেন তাও তিনি জানেন না বলে জানান।

মফিজউদ্দিন বললেন, "যদি সে ফিরে আসে, আমি তাকে গ্রহণ করব কারণ আমি তাকে সত্যিই ভালোবাসি।" আমাদের তিনটি ছোট সন্তানও আছে। আমি যদি আমার স্ত্রীকে মেনে না নিই, তাহলে তাদেরকে কে দেখাশোনা করবে? তিনি বলেন, আইনি ও অন্যান্য সমস্যা যাতে না আসে তাই তিনি কখনও পু’/লি’/শের নিকট কোনো অভি’যোগ করেননি।

ঐ মহিলার দুটি ছেলে ও একটি মেয়ে আছে। সবচেয়ে বড় যে সন্তান তাদের সংসারে তার বয়স ৯ বছর। তার দুইটি পূত্র সন্তান যাদের একজনের বয়স ৩ বছর অন্য জনের বয়স মাত্র ৩ মাস।

আসামের ঘটনাটি সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভা’ইরাল হয়েছে। নেটিজেনরা এই বিষয়ে কোনো রকম সহযোগিতা করতে পারেনি কিন্তু তার স্বামী যে একজন মহান এবং ধৈর্যশীল পুরুষ তা নিয়ে অনেক প্রশংসা করেছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display