বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আতঙ্কিত গোটা পৃথিবী। মহামারী এ ভাইরাসের কবলে পড়ছে প্রায় সব বয়সী মানুষ। বিশেষ করে ডায়াবেটিস, অ্যাজমা, ফুসফুসে সমস্যা কিংবা যক্ষ্মা, পাকস্থলীর সমস্যা এবং ক্যান্সারে রোগীদের এ ভাইরাসে আক্রান্তের ঝুকি অনেক বেশি ছিল। তবে এবার নতুন করে এ কাতারে যুক্ত হলো শ্বাসকষ্ট রোগ। বর্তমানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার অতি ঝুকিতে রয়েছে এ রোগটি। তবে এ বিষয়ে সম্প্রতি ডা. জাকারিয়া মাহমুদ সানাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন, নভেল করোনাভাইরাসের কারণে সারা পৃথিবী জুড়ে চলছে কোভিড-১৯ মহামারী। ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর এবার পৃথিবী সবচেয়ে বেশি হুমকির সম্মুখীন। বাংলাদেশও করোনার ঝুঁকিতে রয়েছে।
দীর্ঘ হচ্ছে সাধারণ ছুটি। করোনার সংক্রমণ রুখতে সবাইকে বাড়িতে অবস্থান করতে হচ্ছে। মেনে চলতে হচ্ছে সামাজিক দূরত্ব। করোনা আতঙ্কে সবাই দিন কাটাচ্ছে। বিশেষ করে চিকিৎসকরা করোনা সংক্রমণ ঝুঁকিতে আছেন। একারণে অধিকাংশ চিকিৎসক প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ করে দিয়েছেন।

সীমিত পরিসরে জরুরি এবং আউটডোর সেবা চালু আছে বিভিন্ন হাসপাতাল-ক্লিনিকে। নিরাপদে থাকতে সবাইকে সচেতন করছে সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগ। এ অবস্থায় বিপাকে সাধারণ রোগীরা। জ্বর, সর্দি কিংবা কাশি হলে করোনার ভয়ে অনেকে চিকিৎসা নিতেও যাচ্ছেন না। বিশেষ করে শ্বাসকষ্টের রোগীরা সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছেন। আজ শ্বাসকষ্ট রোগীদের জন্য থাকছে কিছু পরামর্শ।

শ্বাসকষ্টের রোগীদের জন্য সবচেয়ে ভালো কাজ করবে নেবুলাইজার মেশিন। এ সময়ে নিজে আতঙ্কিত না হয়ে বাসায় প্রস্তুত রাখুন নেবুলাইজার।

নেবুলাইজার মেশিনের সাহায্যে সালবিউটামল + ইপ্রাট্রপিয়াম জাতীয় এবং বুডিসোনাইড নেবুলাইজার সল্যুশন আলাদাভাবে ব্যবহার করে শ্বাসের মাধ্যমে ঔষধ গ্রহণ করতে পারেন। যা আপনাকে তাৎক্ষণিকভাবে শান্তি দেবে। শ্বাসকষ্টের রোগীরা ৬ ঘণ্টা পরপর নেবুলাইজার মেশিনের মাধ্যমে ঔষধ নিতে পারেন।

শ্বাসকষ্টের রোগীরা দুই ধরনের মিটারড ডোজ ইনহেলার ব্যবহার করতে পারেন। সালমেটেরল + ফ্লুটিকাসন (২৫/২৫০) জাতীয় ইনহেলার ১২ ঘণ্টা পরপর দীর্ঘ মেয়াদে ব্যবহার করা যেতে পারে।

দীর্ঘমেয়াদি শ্বাসকষ্টের রোগীরা দীর্ঘমেয়াদে এই ইনহেলার ব্যাবহার করতে পারেন। শ্বাসকষ্ট না থাকলেও এই ইনহেলার ব্যবহার করতে হবে। না হলে শ্বাসকষ্ট বেড়ে যেতে পারে।

দ্রুত শ্বাসকষ্ট কমানোর জন্য সালবিউটামল জাতীয় ইনহেলার ৬ ঘণ্টা পরপর ব্যবহার করা যেতে পারে। ইনহেলার ব্যবহারের পর কুলি করতে হবে।

শ্বাসকষ্ট রোগ হলো শ্বাসনালীর রোগ। ইনহেলারের মাধ্যমে ঔষধ প্রয়োগ করলে এবং সঠিকভাবে ইনহেলার ব্যবহার করলে এই রোগ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

ইনহেলার অবশ্যই আপটেক গো স্পেসার দিয়ে ব্যবহার করতে হবে। আমাদের বেশিরভাগ রোগী ইনহেলার ব্যবহার করতে জানেন না। যার কারণে শ্বাসকষ্ট কমতে বেশি সময় লাগে। এছাড়া শ্বাসকষ্টের রোগী ড্রাই পাউডার ইনহেলার নামক একটি ডিভাইস দিয়ে ক্যাপসুল দিনে দুইবার শ্বাসের মাধ্যমে টানতে পারেন। সালমেটেরল + ফ্লুটিকাসন জাতীয় ক্যাপসুল ২৫০/৫০ দিনে দুইবার শ্বাসের মাধ্যমে টানতে পারেন।

এছাড়া ট্যাবলেট ডক্সোফাইলিন ২০০ মিলিগ্রাম করে দিনে ২ বার করে গ্রহণ করতে পারেন। শ্বাসকষ্টের রোগীরা মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের ঔষধ ১০ মিলিগ্রাম একটা করে নিয়মিত গ্রহণ করতে পারেন।

যেহেতু করোনার হানায় আমরা সবাই যুদ্ধে আছি। আমাদের আরও কিছু দিন যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে। তাই আমাদের সবাইতে সচেতন থাকতে হবে সবসময়। কিছুক্ষণ পরপর সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। ধুলাবালি এড়িয়ে চলতে হবে।

ধূমপায়ীদের অবশ্যই ধূমপান পরিত্যাগ করতে হবে। ঠাণ্ডা পানি এবং ঠাণ্ডা জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। কোন নির্দিষ্ট খাবার গ্রহণ করলে যদি শ্বাসকষ্ট বাড়ে তবে সেই খাবার খাওয়া যাবে না। ব্যথানাশক ঔষধ ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে। ব্যায়াম অথবা খেলাধুলা করার পূর্বে সালবিউটামল ইনহেলার ব্যবহার করতে হবে। ওজন বেশি থাকলে ওজন কমাতে হবে। পারফিউম ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। বেশি সমস্যা হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। সংক্রমণ হচ্ছে প্রতিটি পর্যায়ে। গাণিতিক হারে বাড়ছে। সবাই ঘরে থাকুন। সাবান পানি দিয়ে ভাল করে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড হাত পরিস্কার করুন। অপরিষ্কার হাত দিয়ে মুখে-নাকে-চোখে হাত দেবেন না। ডায়াবেটিস, শ্বাসকষ্ট, উচ্চরক্তচাপযুক্ত রোগীরা নিয়মিত ঔষধ খান, ব্যায়াম করেন। সবাই সবাইকে সহায়তা করুন।

অন্যদিকে জনসাধারনকে মহামারী এ ভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকার লক্ষ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউ এইচ ও) আগের মত বদলে নতুন করে জানিয়েছেন, বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মহামারী এ করোনা ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে সকলেই মাস্ক ব্যবহার করুন। যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে সে মাস্ক ব্যবহার করবে এবং যে আক্রান্ত হয়নি তাকেও মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সুতরাং এ ভাইরাসের কবল থেকে বাঁচতে সকল প্রকার নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

আরো পড়ুন

প্রতারকের সাথে চিকিৎসক যুবতী তিন রাত হোটেলে, পরিচয় পেয়ে নিলেন আইনী সহায়তা

14 January, 2021 | Hits:814

সুইমিং পুলে দুটি মানুষ সাঁতার কাটছে, এটা যেন হংস-হংসী। স্বল্পকাপড় পরিহিতা যুবতী। পাতলা, লম্বা, শ্যাম চেহারার মেয়েটির আন...

বাংলাদেশকে নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্য নিয়ে তীব্র প্র/তিবাদ

14 January, 2021 | Hits:613

মাইকেল আর পম্পেও যিনি মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ সম্পর্কে করা একটি মন্তব্যের প্রেক্ষিতে তী’/ব...

অভ্যন্তরীন দলীয় কোন্দলে ক্ষু/দ্ধ শেখ হাসিনা, নিলেন সিদ্ধান্ত

14 January, 2021 | Hits:450

আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা ও মহানগরীতে বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় আওয়ামীলীগের সাম্প্রতিক সময়...

এবার দিহানের সঙ্গীদের বি/রুদ্ধে ভিন্ন অভিযোগ তুললো আনুশকার পরিবার

14 January, 2021 | Hits:204

রাজধানীর কলাবাগানে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ুয়া স্কুলছাত্রীকে গ’/র্হি’ত কাজ করা এবং এরপর হ’/ত্যা’র জন্য দ্রুত বি’/চা’র করার দা’/...

গ/র্হিত কাজে ডোম মুন্নার বিষয়ে এলো আরো নতুন তথ্য

16 January, 2021 | Hits:202

ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ম’/র্গে আরো আটজন যুব’তীর সাথে গ’/র্হি’/ত কাজ করার প্রমান পেয়েছে। হাসপাত...

আলিশান বাড়ি-গাড়ি রেখে শিক্ষকের সাথে প্রবাসীর স্ত্রী হলেন উধাও

16 January, 2021 | Hits:200

কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলাধীন একটি এলাকার একজন স্কুল শিক্ষকের সাথে এক প্রবাসীর স্ত্রী নিখোঁজ হয়েছেন। ঘটনাটি গত ১০ জান...

এবার একজন খাঁটি নেতার মতই কথা বললেন কাদের মির্জা

16 January, 2021 | Hits:183

আওয়ামী লীগ হতে মনোনীত হয়েছেন মেয়র প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা। তিনি বলেছেন, নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলাধীন বসু...

চীন এবং পাকিস্তানকে দমিয়ে রাখতে এবার সর্বোচ্চ কৌশল ভারতের

14 January, 2021 | Hits:170

ভারত ধীরে ধীরে তার সা’/ম’/রিক বরাদ্দ বাড়িয়ে দিচ্ছে। সা’/ম’/রিক ব্যয়ের ক্ষেত্রে দেশটি ইতিমধ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশের ...

ভাড়া না পাওয়ায় শি/শুসহ ঘরে তালা, গেল প্রান

14 January, 2021 | Hits:144

এবার একজন বাড়িওয়ালার বি’/রু’/দ্ধে ভাড়া না দিতে পারায় ভাড়াটের একটি শিশুসহ ঘর তা’লাব’/ন্ধ করে রাখার অ’/ভি’যোগ উঠেছে। ত...