নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর পিলার এবং স্প্যানে একের পর এক আ’/ঘা’/ত করার কারণে এবার নৌযান চলাচলে ক’ড়াক’ড়ি আরো’প করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। বর্তমান সময়ে দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মা সেতুর কাজ সমাপ্তির দিকে, ঠিক এই সময়ে গত কয়েক মাসে কয়েকবার পদ্মা সেতুর পিলারে এবং স্প্যানে আ’ঘা/ত করে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ফেরি। যার কারণে, এই ধরনের নি’ষেধা’জ্ঞা আরো’/প করেছে নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ। পদ্মা সেতুর নির্দিষ্ট কিছু পিলারের কাছ দিয়ে নৌচলাচল স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

বিআইডব্লিউটিএ’র জা’রিকৃত বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ফেরীসহ অন্যান্য নৌযানসমূহকে দুই প্রান্তের ১-৫ নম্বর এবং ৩৯-৪৯ নম্বর পিয়ারের মধ্যবর্তী স্প্যানসমূহ পরিহার করে চলাচল করার জন্য স্থায়ীভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজারগামী লঞ্চসহ অন্যান্য নৌযানসমূহকে পিলার নম্বর ১৪-১৫, বাংলাবাজার থেকে শিমুলিয়াগামী লঞ্চসহ অন্যান্য নৌযানসমূহকে পিলার নম্বর ১৭-১৮, শিমুলিয়া থেকে আরিচাগামী (উজানের দিক) নৌযানসমূহকে পিলার নম্বর ৬-৭ এবং আরিচা থেকে শিমুলিয়াগামী (ভাটির দিক) নৌযানসমূহকে পিলার নম্বর ৭-৮ এর মধাবর্তী স্প্যান দিয়ে চলাচল করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-পরিচালক স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তি সকল নৌ-যানের মালিক/মাস্টার/ড্রাইভারসহ নৌ-অপারেটর মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।

এর আগে গত ৩১ আগস্ট পদ্মা সেতুর ২ ও ৩ নং পিলারের এর মাঝে অবস্থিত ওয়ান বি নামক স্প্যানের সাথে ধা’ক্কা লাগে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের। গেল জুলাই এবং আগস্ট মাসের দিকে মোট চারবার পদ্মা সেতুর পিলার এবং স্প্যানের সাথে ফেরির ধা’ক্কা লাগার পর বেশ কয়েকজন আ’/হ’ত হয় এবং ফেরির মাস্টারদের সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়। বারবার ফেরির ধা’ক্কা লাগায় চলাচলের পথ পরিবর্তন করতে ফেরিঘাট স্থানান্তর করার জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহন করে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।




আরো পড়ুন

Error: No articles to display