চলমান মহামারী পরিস্থিতিতে দেশে বল্যবিয়ের বিষয়টি বেশ তী’ব্রতা পেয়েছে। বাল্যবিবাহ বন্ধ করার জন্য সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সংস্থা এগিয়ে এসেছে এবং সৃষ্টি করছে সচেতনতা। সরকারের তরফ থেকে করা হয়েছে শা’/স্তির বিধান। এত পদক্ষেপ নেওয়া সত্বেও যেন বাল্য বিয়ে কমছে না। এবার সংসদীয় কমিটির তরফ থেকে সুপারিশ করা হয়েছে যে, পরিবারের কোনো সদস্যের যদি বাল্যবিবাহ হয়ে থাকে বা দেওয়া হয় তাহলে সরকারের ভিজিডি সহায়তা প্রদান করা বন্ধ করে দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। গতকাল (বুধবার) সংসদ ভবনে মহিলা ও শি’/শু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই সুপারিশ করা হয়।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য আব্দুল আজিজ, শবনম জাহান, লুৎফুন নেসা খান, সাহাদারা মান্নান ও কানিজ ফাতেমা আহমেদ অংশ নেন।

মহিলা ও শি’/শুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভিজিডি কর্মসূচি বাংলাদেশের গ্রামীণ দুস্থ নারীদের আর্থসামাজিক অবস্থার উন্নয়নে একটি সামাজিক নি’রাপ’ত্তামূলক কার্যক্রম। দুস্থ পরিবার, বিশেষ করে নারীদের জীবনমান উন্নয়নে এ কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

ভিজিডি উপকারভোগী নারীরা মাসে ৩০ কেজি চাল পান। এ ছাড়া সরকারের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) মাধ্যমে প্রশিক্ষণ পান।
দেশের ৪৯৩টি উপজেলার চার হাজার ৫৭৯টি ইউনিয়নে ১০ লাখ ৪০ হাজার নারীকে এ কর্মসূচির মাধ্যমে চাল দেওয়া হচ্ছে। ২০০৯ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত মোট ৯১ লাখ ৮০ হাজার নারী ভিজিডি কর্মসূচির চাল পেয়েছেন।

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কমিটি ভিজিডি সুবিধাভো’গীদের বাছাই করার ক্ষেত্রে দেখতে বলে হয়েছে ঐ পরিবারে কারো বাল্য বিয়ে রয়েছে কিনা, যদি থেকে থাকে তাহলে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত না করার নির্দেশ দিয়ে মাঠ পর্যায়ে চিঠি পাঠানোর সুপারিশ করেছে।

বৈঠকে আবারও গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলায় জয়িতা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উপরে দুই তলা নির্মাণের কাজ যাতে অল্প সময়ে করা হয় সে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়। এছাড়াও যে সকল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলি বন্ধ হয়ে গেছে সেগুলো পুনরায় চালু করার জন্যও সুপারিশ করা হয়েছে।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display